রসুনের গোড়া তত্ত্ব ও অদৃশ্য ‘মুসলিমবাদ’

সব রসুনের কোয়ার যেমন একটাই গোড়া, সব মুসলমানও তেমনি বিভিন্ন কোয়ায় বিভক্ত হলেও তাদের একটাই গোড়া!

 

চঞ্চল চৌধুরী ইস্যুতে দিন যত যেতে লাগছে তত ভিন্ন ভিন্ন তড়িকার মুসলমান এসে একই সুরে কথা বলা শুরু করেছে। আধুনিক উদার কট্টর সালাফি কাঠ মেঠো দোঁরাশা নিরাশা যত রকমের মুসলমান আছে তারা কিন্তু ঐক্যবদ্ধভাবে ‘ঈদ’ উত্সব করে যখন ইন্ডিয়া ক্রিকেটে হেরে যায়! মোদি বাংলাদেশে আসে! তালেবানের সঙ্গে আমেরিকা আপোষ চুক্তি করে! ইউরোপে মুসলিম জনসংখ্যা বৃদ্ধির খবর আসে! নাস্তিক কোপালে! তসলিমার করোনা হলে। হুমায়ুন আজাদ রক্তাক্ত হলে! ব-দ্বীপ প্রকাশনীর বই নিষিদ্ধ হলে! পশ্চিমবঙ্গে আাব্বাস সিদ্দিকী ভাইজান ভোটে দাঁড়ালে!…

 

আবার যখন দেশে সাম্প্রদায়িক হামলা হয় তখন সর্বতড়িকার মুসলিম জাতীয়তাবাদ এক ছাতার নিচে চলে আসে। আহমদ ছফাকে দিয়ে জীবনেও স্বীকার করানো যায়নি বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক পরিস্থিতি ভয়াবহ দিকে যাচ্ছে। এদেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিমদের আগ্রাসনের বিষয়ে তিনি বরাবর অস্বীকার করে এসেছেন। যদিও ভারতে মুসলিমদের উপর বৈষম্য নিপীড়ন যে ঘটে সে বিষয়ে তিনি নিশ্চিত। ছফাকে আলাদা করে বলার কারণ একটাই। ছফা মৌলবাদী মুসলিম ছিলেন না। ধর্মকর্ম পালন করেননি। কিন্তু তিনি ‘বাঙালী মুসলিম জাতীয়তাবাদ’ ধারণ করতেন। তিনি আর কি কি আদর্শ ধারণ করতেন সেটা বুঝতে তার শিষ্য সলিমুল্লাহ খানকে স্মরণ করুন। শিষ্যে মেলে গুরুর হদিশ! ভাসানীর শিষ্যদের দেখে যেমন ভাষানীর কট্টর মুসলিম জাতীয়তাবাদ ও সাম্প্রদায়িকতা বুঝা যায়। তেমন করে এদেশের জাতীয় নেতা ও বুদ্ধিজীবীদের নিজ বিদ্যা বুদ্ধি দিয়ে যাচাই করে গ্রহণ বা বর্জন করুন। আমার কথায় অন্ধের মত বিশ্বাস করতে হবে না।

 

চঞ্চল চৌধুরীর উপর হাজার খানেক সাম্প্রদায়িক কমেন্ট এখন এই কিছিমের আধুনিক শিক্ষিত মুসলিমদের হাতে লজিক্যাল ফ্যালাসির শিকার হচ্ছে। গুটিকয়েক সাম্প্রদায়িক কমেন্টকে নাকি মিডিয়া বড় করে প্রচার করে দেশের মুসলমানদের হেয় করতে চাইছে। কারণ চঞ্চলের পক্ষে নাকি ৯৯ ভাগ কমেন্টই পড়েছিলো। কিন্তু আরএসএস বিজেপির বাংলাদেশ বিভাগের আইটিসেল (এরকম কিছু কি সত্যি ভূ-ভারতে কোথাও আছে?) নাকি ছোট বিষয়কে বড় করে প্রচার করে বাংলাদেশকে সাম্প্রদায়িক মুসলমানদের দেশ প্রমাণের চেষ্টা করছে। এখানে অনেকেই চঞ্চলের পরোক্ষ চেষ্টাও আবিস্কার করেছেন। নির্ভেজাল ইসলামিক মাইন্ডের মুসলিম যারা, যেমন ইসলামী পার্টি করে, খেলাফত শরীয়া আইন চায় তাদের কথা এখানে বাদ দেয়া হয়েছে। এখানে শুধু সেসব লোকজনই আছেন যারা ইসলামী খিলাফত চান না অন্তত প্রকাশ্যে। তবে পৃথিবীর কোথাও নব উদ্দমে ইসলামী চেতনায় মুসলিম জাতীয়তাবাদের ডাক দেয়া নেতার উদয় হলে (যেমন এরদোয়ান) তারা শিহরিত হয়ে পড়েন। কোটা আন্দোলন করা ছাত্র সমাজ থেকে বাক স্বাধীনতার পক্ষে থাকা ‘জান জবানের’ আন্দোলনকারীদের কথাও বলছি। কোটা আন্দোলনের সময় শরীরে ‘আমি রাজাকার’ লিখে রাখা গর্বিত প্রজন্মকে যা চেনার আমার চেনা হয়ে গিয়েছিলো। জিন্নার মত আধুনিক চলনবলনের মুসলমান, ইমরান খানের মত প্লেবয় কাম অক্সফোর্ড পড়ুয়া মুসলমান, বেনজির ভুট্টর মত গ্রুপ সেক্স করা পশ্চিমা লেবাস অভ্যাস করা মুসলমান যেখানে গোঁড়া মুসলিম জাতীয়তাবাদী হয় সেখানে ইসলামকে সর্বশ্রেষ্ঠ ধর্ম মনে করা হালাল হারাম তফাত করা মুসলমানকে যে বিশ্বাস করে তার মত বলদা দ্বিতীয়টি নেই! মুসলমান ফুল নিয়ে আসলেও আমি তাকে বিশ্বাস করি না!

 

দেখি তো একটা “অভাজনের কুরআন” লিখে আনেন হে প্রগতিশীল! হিযরী সনকে আধুনিক বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে পরিবর্তন করে কবে ঈদ রোজা হবে সেরকম একটা ফিক্সড ক্যালেন্ডার বানাও তো হে বাংলাদেশের প্রগতিশীলরা! ঠগ বাছতে গা উজার হবার দশা! মুসলিম লীগ হলো প্রগতিশীল আর খালি হিন্দুমহাসভা সাম্প্রদায়িক! বলিহারি আমাদের নাস্তিকদের অবস্থা! কিছুদিন পর পর উনারা উদার প্রগতিশীল হুজুর, আধুনিক সহিষ্ণু মডারেট মুসলমান আবিস্কার করেন আর তাদের মাথায় করে নাচেন! শেষে দেখা যায় সেই উদার আধুনিক হুজুর বা মডারেট মুসলমানের গোড়াও এক ও অভিন্ন। ‘ফেস দ্যা পিপল’ নিয়ে নাস্তিকদের কাছেই শুনতাম। তারা নাকি হুজুর আর নাস্তিকদের মধ্যে বিতর্ক করান নিরপেক্ষ থেকে। ধর্ম বিষয়ে তারা নাকি যেরকম উদার দৃষ্টিভঙ্গি প্রচার করেন তাতে নাকি আশার আলো দেখা যায়! এইসব অবিমৃষ্যকারী মন্তব্য করা সম্ভব একমাত্র অভিজ্ঞতা শূন্য থাকলে। ইসলাম বিশ্বাস ও একইসঙ্গে প্রগতিশীলতা-সেক্যুলারিজম একসঙ্গে কখনোই যায় না। ‘ফেস দ্যা পিপল’ তাদের পেইজে লিখে রেখেছে “সৃষ্টিকর্তা ছাড়া তারা আর কাউকে ভয় পায় না”! এরাই নাকি মানবিক হয়ে কথা বলবে! এখন এদের সর্বশেষ পোস্ট দেখুন (স্ক্রেণশর্ট কমেন্টে বক্সে দিলাম) সেখানে লিখেছে আলেমরা নাকি কখনোই ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করেনি! কি নিজেকে এখন আবাল বলে মনে হচ্ছে না এদের বিশ্বাস করে?

 

(বি:দ্র: বেনজির ভুট্টর অবাধ যৌন জীবন নিয়ে লিখিত বইয়ের নাম: ‘ইনডিসেন্ট করেসপন্ডেন্স: সিক্রেট সেক্স লাইফ অফ বেনজির ভুট্টো’ )

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ফেসবুক পেজ

সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email
Share on google
Google+
Share on linkedin
LinkedIn
Share on pinterest
Pinterest
Share on reddit
Reddit
Share on tumblr
Tumblr
Share on telegram
Telegram
Share on pocket
Pocket
Share on skype
Skype
Share on xing
XING
Share on stumbleupon
StumbleUpon
Share on mix
Mix