ইসলাম ও রাজনীতি

সুষুপ্ত পাঠক: ৬২ বছর আগে দলাই লামা তিব্বত থেকে ছদ্মবেশে ভারতে আশ্রয় নিয়েছিলেন। বৌদ্ধ ভিক্ষু এই মানুষটিকে গৌতম বুদ্ধের অবতার বলে বিশ্বাস করা হয়। তিনি নিজেও সেই দাবী করেন। পাঞ্চেন লামা নামে মাত্র ছয় বছরের একটি শিশুকে তিনি তার উত্তরসুরীর (যাকে চীনের কমিউনিস্ট সরকার বিষ প্রয়োগে হত্যা করেছিলো) মৃত্যুর পর পুনর্জন্ম ঘটেছে বলে দাবী করেছিলেন।

চীন সরকার সেই শিশুকে আজতক গৃহবন্দি করে রেখেছে। জনসম্মুখে সেই শিশুকে আর দেখা যায়নি। এত কথা বললাম কারণ, দালাই লামা পুরোপুরি ধর্মীয় একজন ব্যক্তি। তবু তাকে সমর্থন বা বিরোধীতার প্রশ্ন আসবে স্রেফ তিব্বত চীনের নাকি চীন দখলদার সেই প্রশ্নে। মানে দলাই লামা তিব্বতের জাতীয়তাবাদী নেতা। ‘বৌদ্ধ রাষ্ট্র’ ‘বৌদ্ধ শরীয়া আইন’ এরকম কোন কনসেপ্ট যদি গৌতম বুদ্ধের থাকত তাহলে ভারতে দালাই লামা হত জাকির নায়েকের মতই বিষফোঁড়া! মালয়েশিয়াতে জাকির নায়েক সমস্যার সৃষ্টি করছে। বহুত্ববাদে বিশ্বাসী মালয়দের সে ধর্মীয়ভাবে বিভক্ত করতে চাচ্ছে। বলছে একজন ভালো বিধর্মীকে ভোটে নির্বাচিত করার বদলে মুসলিমদের উচিত হবে একজন খারাপ মুসলিমকে নির্বাচিত করা। এসব কেন বলছেন জাকির নায়েক? কারণ ইসলাম যে রাজনীতির কথা বলে সেখানে কোন অমুসলিমকে নেতা মানতে পারে না কোন মুসলমান। ইসলাম যে রাষ্ট্রের কথা বলে সেখানে মুসলিমরাই হবে শাসক। অমুসলিমরা সেখানে জিজিয়া কর দিয়ে বসবাস করবে। রাষ্ট্র পরিচালনা, প্রশাসন কোন কিছুতে তাদের অংশগ্রহণ থাকবে না। কাজেই জাকির নায়েককে পৃথিবীর যে সমাজেই আশ্রয় দিন সে সব জায়গাতেই ধর্মীয়ভাবে বিভাজনের চেষ্টা চালাবে। এটাই তার ধর্ম।

পক্ষান্তরে দলাই লামার কিছু বাণী দেখি তিনি কি বলেছেন-
“আমরা ধর্ম ও ধ্যান ছাড়া বাঁচতে পারি। কিন্তু মানুষের স্নেহ ছাড়া আমরা বাঁচতে পারি না/ এই জীবনের, আমাদের প্রধান উদ্দেশ্য হলো, অন্যকে সাহায্য করা। যদি আপনি অন্যকে সহায়তা করতে না পারেন তবে অন্তত তাদের ক্ষতি করবেন না/ সমস্ত ধর্মই সন্তুষ্টির জন্য, ন্যায়বিচার ও সততার জন্য। ভালবাসা এবং মমত্ববোধের প্রয়োজনীয়তার একই বুনিয়াদি বার্তাসহ, মানুষের উপকার করার চেষ্টা করে”।

আপনি কি আশা করতে পারেন এরকম কিছু বলা আহমদ শফির জন্য কোন পথ খোলা ছিলো? আপনার চোখে যে ইসলামিক আলেমকে সবচেয়ে উদার মনে হয় তার মুখ দিয়ে বলাতে পারবেন “আমরা ধর্ম ও ধ্যান ছাড়া বাঁচতে পারি। কিন্তু মানুষের স্নেহ ছাড়া আমরা বাঁচতে পারি না”? দলাই লামা কিন্তু রোগ শোকের জন্য মানুষের পাপকে দোষেন। তার অনেক বাজে কটুক্তিও পাওয়া যাবে। কিন্তু তিনি ভারতের বৌদ্ধদের বৌদ্ধ রাষ্ট্র কায়েম করতে উশকানি দেন না। ভয়ে দেন না তা নয়। একজন ভিক্ষু হিসেবে জানেন এরকম কোন কিছু গৌতম বুদ্ধের নির্দেশ নয়। বুদ্ধ যদি নরবলির নির্দেশ দিতেন দলাই লামা সেই নির্দেশের পক্ষেই যুক্তি দেখাতেন। এভাবেই তারা ছোট থেকে ব্রেনওয়াশ হয়ে এসেছে।

সারা পৃথিবীতে ধর্মীয় ব্যক্তিদের মুখে নারীদের প্রতি কটুক্তি শুনতে পাওয়া যায়। ভারত ও নেপালের সাধুরা মেয়েদের জিন্স পরার কারণে ভূমিকম্প হওয়া দাবী করেছিলেন। ভারতের বহু মন্দিরে নারীদের প্রবেশ নিষেধ। কথিত নিন্মবর্ণের মন্দিরে যাওয়া বারণ এরকম নজির বিদ্যমান। কিন্তু কোথাও ইসলামী খিলাফত কায়েমের অনুকরণে জঙ্গি ধর্মীয় সংগঠন গড়ে উঠেনি। যখনি আমি এটা বলি তখনই রে রে করে তেড়ে আসেন অনেকে। তারা আমার সামনে ‘অভিনব ভারত’, ‘ সনাতন সংস্থা ’, ‘বজরং দল’ ‘শিবসেনা’ ‘বিজেপি’ নামগুলো তুলে ধরে তাদেরকে হিন্দু জঙ্গি হিসেবে দেখান। কিন্তু একটু নির্মোহভাবে যদি বিবেচনা করেন তাহলে এই দলগুলোর সঙ্গে ‘তালেবান, ‘ইসলামিক স্টেট’ ‘আল কায়দা’, ‘বোকো হারাম’ ‘হিজবুল মুজাহিদিন’, ‘লস্কর-ই-তৈবা’ ‘আনসার বাংলা, ‘জেএমবি’ প্রভূতি দলগুলোর কি তাত্ত্বিক প্রয়োগিক তফাত আছে না? বিজেপি কি জামাত ইসলামের সঙ্গে তুলনীয় হবে নাকি ‘মুসলিম লীগের’ সঙ্গে তুলনীয় হবে? আমি কিন্তু জামাত বা ইসলামী রাজনীতির চাইতে বেশি ভয়ংকর মনে করি মুসলিম লীগকে। কারণ ওটা মুসলিম জাতীয়তাবাদী দল। ঠিক তেমনভাবে বিজেপিকে ভয়ানক মনে করি কারণ ওটা হিন্দু জাতীয়তাবাদকে ধারন করে। কিন্তু আপনি কিছুতে ইসলামিক জঙ্গিদের সঙ্গে বিজেপিকে মিলাবেন না কারণ এটা ভুল। আপনি ইসলামিক রাজনীতির সঙ্গে মুসলিম লীগকে মেলাবেন না। মুসলিম লীগে আবুল হাশিমের মত প্রগতিশীল ধর্মনিরপেক্ষ লোকও ছিলো। বিজেপিতেও বাজপেয়ির মত নেতা ছিলো। ইসলামে নারী নেতৃত্ব হারাম বলে কোন ইসলামিক দলেই নারী নেতৃত্ব তৈরি করতে মহিলা দল খুলে না। কিন্তু মুসলিম লীগের বড় বড় নারী নেতৃত্ব ছিলো। বিজেপিতে সিনেমার নায়িকা থেকে শুরু করে সুষমা স্বরাজের মত গুণি রাজনীতিবিদ ছিলেন। আপনি বিজেপিকে মুসলিম লীগের সঙ্গে তুলনা করুন। মুসলিম লীগ যেভাবে বাংলাকে ধর্মীয় জাতীয়তাবাদে বিভক্ত করেছে বিজেপি সেটাই করতে সক্ষম হতে পারে কিন্তু হিন্দু রাষ্ট্র বলতে কিছু তাদের উদ্দেশ্য নয়। এরকম কোন রাষ্ট্র বা আইনে হিন্দুরা ঐক্যবদ্ধ থাকলে বহু আগেই ভারতে ‘হিজবুল মুজাহিদিন’, ‘লস্কর-ই-তৈবা’ অনুরূপ হিন্দু জঙ্গি সংগঠন জন্ম নিতো। শিবসেনা মারাঠা জাতীয়তাবাদের দল। পাকিস্তান বিরোধী দল। তাতে কিছুমাত্র শিবসেনার পাপ লঘু হয় না। কারণ আমি মুসলিম লীগকে ভয়ানক বলি। ভারত ভাগ করেছে মুসলিম লীগ ধর্মীয় জাতীয়তাবাদে, দেওবন্ধ মাদ্রাসা কিন্তু দেশভাগ করেনি।

তাই, ইসলামিক খিলাফত কায়েমের আদর্শে পরিচালিত ইসলামিক জঙ্গি গ্রুপগুলো অনন্য এটি যারা মানতে চায় না, সব মৌলবাদকে একই পাল্লা বাটখারায় মাপতে চায় তারা রাজনৈতিক ধান্দাবাজ। জাতীয়তাবাদী রাজনীতি একটি নির্দিষ্ট অঞ্চলেই সম্ভব। যেমন দলাই লামার রাজনীতি তিব্বতীয় জাতীয়তাবাদ। বিজেপির রাজনীতি ভারতের বাইরে যাবার কোন প্রশ্নই আসে না। মুসলিম লীগের রাজনীতিও পাকিস্তান বাংলাদেশের বাইরে নয়। কিন্তু ইসলামের রাজনীতি? ইসলামিক খিলাফত একটি বৈশ্বিক সমস্যার নাম। সারা পৃথিবী থেকে সিরিয়াতে মুসলিম তরুণ তরুণীরা আইএসে যোগ দিতে গেছে। দলাই লামা কি বিশ্বে বৌদ্ধ জাতীয়তাবাদ উশকে দিয়ে চীনের উপর চাপ ফেলার চেষ্টা করেছে? দক্ষিণ ভারতের রাবণের পুজা করা হিন্দুরা কি রামরাজ্যের ডাকে সাড়া দিবে? জাপানে পারমানবিক বোমা ফেলার পর কি বৌদ্ধ জঙ্গিবাদের জন্ম ঘটেছিলো? ঘটেনি। কিন্তু ফ্রান্সে আল্লাহো আকবর বলে ফুটপাথে লড়ি তুলে দিলেই আলজেরিয়ায় ফরাসি উপনিবেশের নিপীড়নের বহির্প্রকাশ বলা হয়। ফ্রান্সে মুহাম্মদের কার্টুন আঁকা হলে ফরাসী প্রেসেডিন্ট ম্যাঁক্রোর ছবিতে বিশ্বের ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা মুসলিমরা জুতা পেটা করে। কিন্তু আফগান পাহাড়ে বুদ্ধ মূর্তিগুলো ভাঙ্গা হলে, কিংবা বাংলাদেশের রামুতে বৌদ্ধ বিহার মুর্তি ভাঙ্গা হলে জাপানে কোন মুসলিম কমিউনিটি ভয়ে ঘরবন্দি থাকে না। ‘অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশন’ আদলে ইহুদী খ্রিস্টান বৌদ্ধ হিন্দুদের একটি জাতি হিসেবে আন্তর্জাতিক কোন সংস্থা নেই কারণ ঐসব ধর্মের কোন রাজনৈতিক কনসেপ্ট নেই। একমাত্র বুদ্ধি প্রতিবন্ধি ও ধান্দাবাজ ছাড়া ইসলামের সঙ্গে অন্যদের এই মৌলিক তফাত চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিলে ঠিকই তারা স্বীকার করে নিবে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ফেসবুক পেজ

সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email
Share on google
Google+
Share on linkedin
LinkedIn
Share on pinterest
Pinterest
Share on reddit
Reddit
Share on tumblr
Tumblr
Share on telegram
Telegram
Share on pocket
Pocket
Share on skype
Skype
Share on xing
XING
Share on stumbleupon
StumbleUpon
Share on mix
Mix